সামরিক দিক দিয়ে কতটা শক্তিশালী উত্তর কোরিয়া

May 28, 2018 01:19 pm
কোরিয়ান পিপলস আর্মি



মুহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান

পূর্ব এশিয়ার কমিউনিস্টশাসিত দেশ উত্তর কোরিয়া। পুরো নাম ডেমোক্র্যাটিক পিপলস রিপাবলিক অব কোরিয়া। ২০০৮ সালের জাতিসঙ্ঘের হিসাব অনুযায়ী দেশটির মোট জনসংখ্যা ২৩ দশমিক ৯ মিলিয়ন। আয়তন এক লাখ ২২ হাজার ৭৬২ বর্গকিলোমিটার। উত্তর কোরিয়ার বেশির ভাগ মানুষের ধর্মীয় কোনো বিশ্বাস নেই। দেশটির সর্বোচ্চ নেতা কিম জং-ইল। সাম্প্রতিক সময়ে পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষা নিয়ে এই দেশ বেশ আলোচিত। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সমালোচিত। ২০০২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ উত্তর কোরিয়াকে শয়তান চক্রের অংশ বলেছিলেন। বর্তমানে উত্তর কোরিয়া উদীয়মান সামরিক শক্তির একটি দেশ। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের মতো বড় সামরিক শক্তির হুমকি মোকাবেলা করতে হয় একে। আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের সামরিক উত্তেজনার চেয়ে উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক উত্তেজনা কোনো অংশেই কম নয়।


কোরিয়ান পিপলস আর্মি
দ্য কোরিয়ান পিপলস আর্মি (কেপিএ) উত্তর কোরিয়া মিলিটারির অফিসিয়াল নাম। পাঁচটি শাখার সমন্বয়ে গঠিত সংস্থা। নিয়ন্ত্রণ করে দেশটির ন্যাশনাল ডিফেন্স কমিশন। কমিশনের চেয়ারম্যান ও কেপিএ’র সুপ্রিম কমান্ডার দেশটির সর্বোচ্চ নেতা কিম জং-ইল। শাখা পাঁচটি হচ্ছেÑ আর্মি গ্রাউন্ড ফোর্স, নেভি, এয়ারফোর্স, আর্টিলারি গাইডেন্স ব্যুরো ও স্পেশাল অপারেশন ফোর্স। বার্ষিক বাজেট প্রায় ছয় বিলিয়ন মার্কিন ডলার। দেশটির দুই থেকে নয়টি পারমাণবিক বোমার কাঁচামাল আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিশ্বে বর্তমান সময়ে উত্তর কোরিয়া বৃহৎ সামরিক শক্তির দেশ। দেশটিতে বর্তমান আর্মির সংখ্যা প্রায় ১ দশমিক ২ মিলিয়ন। এই সংখ্যা বিশ্বে চতুর্থ। যেকোনো সামরিক পদক্ষেপে কোরিয়ান পিপলস আর্মিকে মিলিটারি অব সাউথ কোরিয়া ও ইউনাইটেড স্টেটস ফোর্সেস কোরিয়ার মুখোমুখি হতে হয়। ১৯৫৩ সালে কোরিয়ান যুদ্ধ শেষ হওয়ার পর থেকে কোরিয়ান বেসামরিক অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের সৈন্য অবস্থান করছে। কোরিয়ান ভলান্টিয়ার আর্মি থেকে দ্য কোরিয়ান পিপলস আর্মি প্রতিষ্ঠা করা হয়। গঠন করা হয় ১৯৩৯ সালে।


ব্যালাস্টিক মিসাইল
উত্তর কোরিয়ার আট শতাধিক ব্যালাস্টিক মিসাইল রয়েছে বলে ধারণা করা হয়। এর মধ্যে লং রেঞ্জের যেসব মিসাইল রয়েছে তা একদিন আমেরিকা আক্রমণ করতে পারবে বলে সামরিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। এই লং রেঞ্জের মিসাইলকে স্কাড মিসাইলে উন্নীত করা হচ্ছে। স্কাড মিসাইল অনায়াসে যেকোনো দিকে ছুটতে পারে। কমিউনিস্ট শাসিত উত্তর কোরিয়া ১৯৬৯ সালে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে মিসাইল ক্ষেপণাস্ত্র পেয়েছিল। কিন্তু ১৯৭৬ সালে দেশটিতে মিসর হয়ে স্কাড মিসাইল আসে বলে অফিসিয়ালি বলা হয়েছে। এর নাম ছিল স্কাড-বি। এই মিসাইলটির ডিজাইন তৈরি করা হয়েছিল ইসরাইলের বিরুদ্ধে ইয়ুম কাপুর যুদ্ধে ব্যবহারের জন্য।

১৯৮৪ সালে উত্তর কোরিয়া তার নিজস্ব প্রযুক্তির মাধ্যমে স্কাড-বি মিসাইলের উন্নয়ন করে। নাম দেয়া হয় স্কাড-সি। এ ছাড়া একই সময়ে তৈরি করা হয় নুডং নামে মধ্যম রেঞ্জের মিসাইল। একই প্রযুক্তির ওপর ভিত্তি করে পরে লং রেঞ্জের মিসাইল তৈরি করা হয়। নাম দেয়া হয় দ্য টায়পোডং। এর দু’টি সংস্করণ। টায়পোডং-১ ও টায়পোডং-২। টায়পোডং-১ আঘাত হানতে পারে দুই হাজার ৯০০ কিলোমিটার দূরত্বে। আর টায়পোডং-২ আঘাত হানতে পারে চার হাজার থেকে ১০ হাজার কিলোমিটার দূরত্বে। বিশেষজ্ঞের বরাত দিয়ে বিবিসি বলেছে, টায়পোডং-২ সফলভাবে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া এবং এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের মধ্য-পশ্চিমাঞ্চলে আঘাত হানতে সক্ষম। এর নতুন মডেল ১৫ হাজার দূরত্বের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারবে বলে তাদের ধারণা। গত এপ্রিল মাসে এই মিসাইল ক্ষেপণাস্ত্রটি পরীক্ষা করতে গিয়ে ব্যাপক বাধার মুখে পড়ে উত্তর কোরিয়া।


পারমাণবিক বোমার পরীক্ষা
উত্তর কোরিয়া এখন পারমাণবিক শক্তিধর দেশ। গত ২৫ মে দেশটি পারমাণবিক বোমার পরীক্ষা করে জাপান ও উত্তর-দক্ষিণ কোরিয়াসহ পশ্চিমা বিশ্বের ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছিল। জাতিসঙ্ঘ থেকেও পরীক্ষাটি চালাতে নিষেধ করা হয়েছিল। কিন্তু উত্তর কোরিয়া এটি পারমাণবিক পরীক্ষা নয় বলে অফিসিয়ালি বলেছে। এটি ছিল লং রেঞ্জের টায়পোডং-২ মিসাইলের পরীক্ষা মাত্র। তবে উত্তর কোরিয়ার এ কথায় সন্তুষ্ট হতে পারেনি জাতিসঙ্ঘ। হুমকি দিয়েছে বিভিন্ন অবরোধের। পরে আর কোনো পারমাণবিক পরীক্ষা যেন করা না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। এই পরীক্ষাটি হচ্ছে দেশটির দ্বিতীয় পারমাণবিক পরীক্ষা। এর আগে ১৯০৬ সালের অক্টোবরে শর্ট রেঞ্জ মিসাইলের প্রথম পারমাণবিক পরীক্ষা চালিয়েছিল উত্তর কোরিয়া। এটি পরীক্ষা করা হয় মাটির নিচে।


সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে পারমাণবিক অস্ত্রের হাতেখড়ি
উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক স্থাপনার হাতেখড়ি নেয় সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে। ১৯৫০ সালের মাঝামাঝি সময়ে। প্রশিক্ষণ নেয় দুবনার জয়েন্ট ইনস্টিটিউট ফর নিউক্লিয়ার রিসার্সে। যেখানে উত্তর কোরিয়ার বিজ্ঞানীরা ইলেকট্রনিক ফিজিক্স রেডিওকেমিস্ট্রি, হাই-এনার্জি ফিজিক্স বিষয়ে প্রশিক্ষণ নেয়। এ ছাড়া সংশ্লিষ্ট আরো কিছু বিষয়ে প্রশিক্ষণ নেয় বিজ্ঞানীরা। প্রশিক্ষণের প্রথম দিকে উত্তর কোরিয়ার বিজ্ঞানীরা পারমাণবিক শক্তিকে শান্তিপূর্ণভাবে ব্যবহার করা হবে বলে প্রচার করেছিল। এ লক্ষ্যেই ১৯৫৯ সালে দু’দেশের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়।


এরপর শুরু হয় যৌথভাবে পারমাণবিক কেন্দ্র স্থাপনের কাজ। পরের বছর দেশটিতে নতুন রিসার্স ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা ও ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হয়। ২০০২ সালে যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা দেয় উত্তর কোরিয়া গোপনে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করছে। ২০০৩ সালের ২৪ এপ্রিল উত্তর কোরিয়া যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিত এক গোলটেবিল বৈঠকে দেশটি পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করছে বলে আলোচনায় আসে। একই বছর জুলাই মাসে পিয়ংইয়ং ঘোষণা দেয় তাদের হাতে ছয়টি পারমাণবিক অস্ত্রের কাঁচামাল আছে।
পারমাণবিক বোমা নিক্ষেপের ক্ষমতা নেই!


বিশেষজ্ঞদের ধারণা, পারমাণবিক বোমা নিক্ষেপের মতো ক্ষমতা দেশটির নেই। বিশ্বের বিভিন্ন গণমাধ্যমে তারা বলেছেন, পারমাণবিক বোমা বহন করার মতো যে উন্নত প্রযুক্তির ব্যালাস্টিক মিসাইল প্রয়োজন তা এখনো দেশটি অর্জন করতে পারেনি। তবে অনেকের মত হচ্ছে, সাম্প্রতিক দ্বিতীয় পারমাণবিক পরীক্ষার সাথে বিশেষজ্ঞদের এই ধারণার অমিল রয়েছে। দেশটি বর্তমানে পারমাণবিক দিক থেকে বেশ শক্তিশালী।

জনবল 
মোট জনসংখ্যা : ২৩,৪৭৯,০৮৮ জন
মিলিটারি সার্ভিসের উপযুক্ত : ১০,২৮০,৬৮৭
প্রতি বছর মিলিটারি সার্ভিসের উপযুক্ত হয় : ৩৯২,০১৬
অ্যাকটিভ মিলিটারি পার্সোনেল : ১,১৭০,০০০
অ্যাকটিভ মিলিটারি রিজার্ভ : ৪,৭০০,০০০
অ্যাকটিভ প্যারামিলিটারি ইউনিটস : ১৮৯,০০০

সেনাবাহিনী 
ল্যান্ড-বেইজড অস্ত্র : ১৬,৪০০
ট্যাঙ্ক : ৩,৫০০
সাঁজোয়া যান : ২,৫০০
সেলফ-প্রোপেলড গান : ৪,৪০০
মাল্টিপল রকেট লান্স সিস্টেম : ২,৫০০
মর্টার্স : ৭,৫০০
অ্যান্টি-অ্যায়ারক্রাফট উইপন : ১১,০০০

নৌবাহিনী
নেভি শিপ : ৭০৮
মার্চেন্ট মেরিন স্ট্রেন্থ : ১৬৭ (২০০৮ সাল)
প্রধান বন্দর : ১২
সাবমেরিন : ৯৭ (২০০৮ সাল)
ফ্রিগেট : ৩
পেট্রল ও কোস্টাল ক্রাফট : ৪৯২ (২০০৬ সাল)
মাইন ওয়ারফেয়ার ক্রাফট : ২৩ (২০০৬ সাল)
উভচর ক্রাফট : ১৪০ (২০০৬ সাল)

বিমানবাহিনী
মোট এয়ারক্রাফট : ১,৭৭৮ (২০০৬ সাল)
হেলিকপ্টার : ৬২১ (২০০৬ সাল)
এয়ারপোর্ট : ৭৭ (২০০৭ সাল)

অন্যান্য
সামরিক বাজেট : ৫,৫০০,০০০,০০০ মার্কিন ডলার (২০০৫ সাল)
ক্রয়ক্ষমতা : ৪০,০০০,০০০,০০০ মার্কিন ডলার (২০০৭ সাল)
সড়কপথ : ২৫,৫৫৪ কিলোমিটার
রেলপথ : ৫,২৩৫ কিলোমিটার
নদীপথ : ২,২৫০ কিলোমিটার
কোস্টলাইন : ২,৪৯৫ কিলোমিটার
দেশটির মোট ভূমি : ১২০,৫৪০ বর্গকিলোমিটার


কোরিয়ান যুদ্ধের পর কোনো শান্তিচুক্তি হয়নি
দুই কোরিয়ার মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়েছিল ১৯৫০ সালে। এই যুদ্ধ কোরিয়ান ওয়ার নামে বেশি পরিচিত। যুদ্ধে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল উভয় কোরিয়ার। কোরিয়ান যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছিল যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও চীন। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য দক্ষিণ কোরিয়ার পক্ষে আর চীন উত্তর কোরিয়ার পক্ষ নেয়। যুদ্ধ শেষ হয়েছিল ১৯৫৩ সালে। যেকোনো বড় যুদ্ধের পর প্রতিপক্ষের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়। কিন্তু এই যুদ্ধ ছিল ব্যতিক্রম। যুদ্ধের পর অর্ধশতাব্দী পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত দুই কোরিয়ার মধ্যে কোনো শান্তিচুক্তি হয়নি। এর ফলে দ্ইু দেশের মধ্যে এখনো উত্তেজনা বিরাজ করছে। বিশ্বের যে কয়টি অঞ্চলে সর্বাধিক সামরিক শক্তি রয়েছে দুই কোরিয়ার সীমান্ত তার মধ্যে একটি। উত্তর কোরিয়ার মিলিটারি বর্তমানে বিশ্বের মধ্যে খুবই শক্তিশালী।


উত্তর কোরিয়ার সামরিক হুমকি
দক্ষিণ কোরিয়া ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যসহ জাতিসঙ্ঘের সামরিক হুমকির মধ্যে রয়েছে উত্তর কোরিয়া। আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের সামরিক সঙ্ঘাত প্রায়ই আমাদের ভাবিয়ে তোলে। কিন্তু এই দু’টি দেশের চেয়েও বেশি সামরিক উত্তেজনা বিরাজ করে উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ায়। দীর্ঘদিন ধরে এই দুই দেশের সীমান্তে ভারী অস্ত্রের ব্যবহার হচ্ছে। মনে হবে কোনো যুদ্ধের প্রস্তুতি চলছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা উত্তর কোরিয়াকে বিশ্বে ‘কবরের হুমকি’ বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বিশ্বকে উত্তর কোরিয়ার ব্যাপারে কোনো ছাড় না দেয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন। এ জন্য প্রয়োজনে আক্রমণাত্মক হতে পরামর্শ তার। বারাক ওবামা উত্তর কোরিয়াকে যুক্তরাষ্ট্রের সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি বলে মনে করেন। ওবামার এই মন্তব্যের জবাবে উত্তর কোরিয়া তাকে ‘ভ’ আখ্যায়িত করে বলেছে, ‘পারমাণবিক প্রোগ্রাম যুক্তরাষ্ট্রের একক কোনো সম্পত্তি নয়।’


ব্যালাস্টিক মিসাইল বিক্রেতা
উত্তর কোরিয়ার ব্যালাস্টিক মিসাইলের ক্রেতা বিশ্বের অনেক দেশ। কিউবা দেশটির কাছ থেকে ক্রয় করেছে হোসং-৬ মিসাইল। মিসাইলটির শিপিং করেছে উত্তর কোরিয়া নিজেই। মিসর হোসং-৫ ও হোসং-৬ তৈরিতে কারিগরি সহযোগিতা নেয় দেশটি থেকে। ইথিওপিয়া হোসং-৫ তৈরিতে যেসব সমস্যার মুখোমুখি হয়ে উত্তর কোরিয়া থেকে তার কারিগরি তথ্য নিয়েছে। ইরান উত্তর কোরিয়ার মিসাইলের প্রথম ক্রেতা। উত্তর কোরিয়ার মিসাইল ক্রয় করে ইরান হোসং-৫ থেকে স্থানীয়ভাবে শাহাব-৫ ও হোসং-৬ এর প্রযুক্তি ব্যবহার করে শাহাব-২ এবং রোডং-১ এর প্রযুক্তি ব্যবহার করে শাহাব-৩ মিসাইল উৎপাদন করে। লিবিয়া মিসাইল তৈরিতে কারিগরি সহায়তা নিয়েছে উত্তর কোরিয়া থেকে।

২০০৪ সালে নাইজেরিয়া উত্তর কোরিয়া থেকে মিসাইল তৈরির প্রযুক্তি ক্রয়ে চুক্তির ঘোষণা দিয়েছিল। অবশ্য জাতিসঙ্ঘের চাপে এক মাস পর এই চুক্তি প্রত্যাখ্যান করে নাইজেরিয়া। হোসং-৫ মিসাইল তৈরির কিছু প্রযুক্তি কঙ্গো উত্তর কোরিয়া থেকে নিয়েছিল বলে গণমাধ্যমে প্রচার হলেও এটি সম্পর্কে নিশ্চিত কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। ২০০৪ সালে সুদানে স্কাড মিসাইলের শিপিং হয়েছিল। সিরিয়া উত্তর কোরিয়ার হোসং-৬ ও রোডং-১ মিসাইল ব্যবহার করেছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত ১৯৮৯ সালে উত্তর কোরিয়া থেকে হোসং-৫ মিসাইল কিনেছিল। তবে এই মিসাইলে সন্তুষ্ট হতে পারেনি আমিরাত। এটি স্টোরে রেখে দেয়া হয়েছে। ভিয়েতনাম ১৯৯৮ সালে হোসং-৫ ও ৬ প্রযুক্তির মিসাইলের অধিকারী হয়। তবে এটি সরাসরি উত্তর কোরিয়া থেকে নেয়া হয়েছে কি না তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ইয়েমেন উত্তর কোরিয়া থেকে ১৫টি ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয় করেছে বলে ধারণা করা হয়।


শেষ কথা
 যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের  বলেছিলেন, উত্তর কোরিয়ার কোনো বন্ধু নেই, যে বন্ধু পারমাণবিক অস্ত্রের ক্ষেত্রে তাকে সহযোগিতা করবে। অপর দিকে উত্তর কোরিয়া জাতিসঙ্ঘ, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ কারো হুমকিতেই বিচলিত নয়। সামরিক ক্ষেত্রে দেশটি অত্যন্ত সমৃদ্ধ হচ্ছে। দুই কোরিয়ার একটি বৃহৎ বেসামরিক এলাকা রয়েছে। যেখানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সৈন্য। তারা সেই অঞ্চলটি দেখভাল করছে। অন্য দিকে যুক্তরাষ্ট্রের একদম পেটের মধ্যে আঘাত হানা যায় এমন সব অস্ত্র আবিষ্কার করছে উত্তর কোরিয়া। পুঁজিবাদ ও সমাজতন্ত্রের দ্বন্দ্ব এখনো যে শেষ হয়নি তা এই দেশটির দিকে দৃষ্টি দিলে বোঝা যায়। এই দ্বন্দ্ব কত দূর এগিয়ে যাবে তা-ই এখন দেখার বিষয়।