সাপ ব্যঙ খেয়ে যেভাবে হয় সেনা প্রশিক্ষন

Feb 24, 2018 04:34 pm
সাপের রক্ত খাওয়া সহজ নয়

আসিফ মাহমুদ 

থাইল্যান্ডের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক সর্ম্পক বেশ পুরানো।এশিয়ার এই দেশটিতে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র দেশগুলোকে নিয়ে বড় ধরনের নিবিড় সামরিক প্রশিক্ষন অনুষ্টিত হয়। যেখানে ফিলিপাইন ও দক্ষিন কোরিয়ার সেনাবাহিনীর সদস্যরা অংশগ্রহন করে থাকে। এই ধরনের প্রশিক্ষনের নাম দেয়া হয়েছে   ‘কোবরা গোল্ড’ ট্রেনিং৷ থাই সেনার সঙ্গে  মার্কিন সৈন্যরা এতে অংশগ্রহন করেছে৷ রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার সৈন্যরাও৷ যুদ্ধ পরিস্থিতিতে জঙ্গলে কীভাবে বেঁচে থাকতে হয়, তারই প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। কিন্তু এই প্রশিক্ষন হয় অত্যন্ত বিপজ্জনক ও মানসিক চাপের কারন। সৈনিক মাত্রই বিপদ আর মানসিক চাপের মধ্যে দায়িত্ব পালন করতে হয়। কেমন হয় সেই প্রশিক্ষন আসুন জেনে নেই। 

কেউটের রক্ত
ভিয়েতনাম যুদ্ধে মার্কিন সৈন্যবাহিনীর অপদস্ত হওয়ার অন্যতম কারণ ছিল, জল-জঙ্গলের যুদ্ধে তাঁরা প্রশিক্ষিত ছিল না৷ ভিয়েতনামে তাদের পরাজয়ের অভিজ্ঞতা থেকে জঙ্গল যুদ্ধকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।  ভিয়েতনামের মতোই জঙ্গল থাইল্যান্ডে৷ মার্কিন সেনা সেখানে জঙ্গলে বেঁচে থাকার প্রশিক্ষণ নিতে শুরু করেছে৷ জঙ্গলে দীর্ঘ  সময় বেচে থাকতে হলে সাপের সাথে লড়া্ই করে বেচে থাকতে হবে। এমনকি খাবার অভাবে সাপ খাওয়ার প্রয়োজন হতে পারে। কিভাবে মার্কিন সৈন্য কেউটে সাপের রক্ত পান করবেন তার প্রশিক্ষন দেয়া হয়।

প্রশিক্ষণ পর্ব
সাপ খাওয়ার আগে সাপ ধরার কৌশল জানতে হবে। এই প্রশিক্ষনে থাই সেনা কর্মকর্তারা যুক্তরাষ্ট্রের সৈন্যদের  কীভাবে জঙ্গলে কেউটে সাপ ধরতে হয় তার সরাসরি প্রশিক্ষন দিয়ে থাকে৷ এবং তারপর বিষ বের করে সেই সাপ খেতে হয়৷

রক্তপানের পর
সাপের রক্ত পান করার কাজটি মোটেই সহজ নয়৷ সাপ মেরে সেই রক্ত পান করা৷ কঠিন সেই কাজটা করে স্বভাবতই খুশি মার্কিন সেনা কর্মকর্তা৷ প্রশিক্ষনের এক ছবিতে দেখা যায় মার্কিন সেনা কর্মদিকর্তা দিনভর সেই রক্ত লেগে ছিল তাঁর শরীরে এবং পোশাকে৷

অ্যামবুশ
এই প্রশিক্ষনে গুরুত্ব পায় বিভিন্ন দেশের সৈন্যদের অ্যামবুশ প্রশিক্ষন। থাইল্যান্ডের পাহাড়, সমুদ্র সৈকত ও জঙ্গলে অ্যামবুশের প্রশিক্ষন দেয়া হয়। যেমন এক ছবিতে দেখা যায় দক্ষিন কোরিয়া এবং মার্কিন সেনারা একত্রে নিয়েছে সমুদ্রের ধারে অ্যামবুশ করার প্রশিক্ষণ নিচ্ছে৷ জাহাজ থেকে নেমেই কীভাবে শত্রুর সঙ্গে লড়াই শুরু করে দিতে হয়, তা শেখানো হয় তাঁদের৷

ব্যাঙ খাওয়া
শুধু সাপ নয়, জ্যান্ত ব্যাঙ এবং অন্যান্য কীটপতঙ্গ কীভাবে ধরে খেয়ে ফেলতে হয়, তারও প্রশিক্ষণ দেয়া হয় হয় থাইল্যান্ডের জঙ্গলে৷ যেমন প্রশিক্ষনের অংশ হিসাবে আস্ত একটি ব্যাঙ খেয়ে ফেলছেন এক মার্কিন সেনা৷এরপর তার প্রতিক্রিয়া নিবিড় ভাবে পর্যবেক্ষন করা হয়।

বালির প্রশিক্ষণ
মার্কিন সেনা এবং থাই সেনা একত্রে বালির ওপর যুদ্ধের নানা কৌশল নিয়ে প্রশিক্ষন ও অভিজ্ঞতা বিনিময় করে থাকে। বালির মধ্যে যুদ্ধ করা সহজ কাজ নয়। 

হাতের উপর শুঁয়ো
জঙ্গল যুদ্ধে বনের পশুপাখি এবং কীটপতঙ্গের সঙ্গে যুঝে চলতে হয় সৈন্যদের৷ কীভাবে বিছে, শুঁয়োপোকার মতো কীটদের সঙ্গে জীবন কাটাতে হয়, তারও প্রশিক্ষণ হয় থাইল্যান্ডে৷ যেমন একটি বিছেকে হাতের উপর দিয়ে যেতে দিচ্ছেন কয়েকজন মার্কিন সৈন্য৷ এ ধরনের অভিজ্ঞতা তাদের আর কখনো হয়নি।