বিশ্বের সেরা নিরাপদ নগরী

Dec 05, 2017 03:31 pm
টোকিও সিটি

 

বিশ্বে বাস করার উপযোগী সব থেকে নিরাপদ ৫০টি শহরের তালিকা প্রকাশ করে  দ্য ইকনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট। শহরগুলি নির্বাচিত করতে ৫টি বিষয়ের উপর জোর দেওয়া হয়েছে। শহরের সার্বিক সূচক, ডিজিটাল সুরক্ষা, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, পরিকাঠামোগত সুরক্ষা এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষা। এর নিরিখে এশিয়ারই সব থেকে বেশি শহর রয়েছে। মোট ২৩টি। ইউরোপের ১৩টি শহর রয়েছে প্রথম ৫০-এ। উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা থেকে স্থান পেয়েছে ১৩টি শহর। আফ্রিকা থেকে প্রথম তালিকায় একমাত্র শহর জোহানেসবার্গ।

এক নজরে দেখে নিন প্রথম ১০-এ স্থান পেল কোন কোন শহর:


১. টোকিও: ইকনমিস্টের বিচারে বিশ্বের সব থেকে নিরাপদ শহরের তকমা পেয়েছে টোকিও। সব প্যারামিটারে একমাত্র হিসাবে প্রথম ১০-এৎ মধ্যে স্থান পেয়েছে টোকিও। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৮২ বছর।

২ .সিঙ্গাপুর: ব্যক্তিগত সুরক্ষায় এক নম্বরে রয়েছে সিঙ্গাপুর। ব্যবসার পরিবেশগত দিক থেকে এক নম্বরে রয়েছে। সব মিলিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এই শহর। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৮২ বছর।

৩. ওসাকা: ব্যক্তিগত সুরক্ষায় দুয়ে এবং ডিজিটাল সুরক্ষায় পাঁচে রয়েছে ওসাকা। সব মিলিয়ে ৩ নম্বরে জায়গা করে নিয়েছে জাপানের শহর ওসাকা। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৮৩ বছর।

৪. স্টকহোম: সুইডেনের রাজধানী। গণতান্ত্রিত সূচকের নিরিখে এক নম্বরে রয়েছে স্টকহোম। সব মিলিয়ে ৪ নম্বরে রয়েছে। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৮২ বছর।


৫. আমস্টারডাম: উত্তর আমেরিকা এবং অস্ট্রেলিয়ার পর ইউরোপের দ্বিতীয় শহর আমস্টারডাম যা প্রথম ১০-এ জায়গা পেয়েছে। সুরক্ষার বিচারে বিশ্বের পঞ্চম নিরাপদ শহর। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৭৯ বছর।

৬. সিডনি: অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় শহর হিসাবে প্রথম ১০-এ স্থান পেয়েছে সিডনি। পাঁচটি প্যারামিটারের বিচারে ৬ নম্বরে রয়েছে এই শহর। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৮১ বছর।

৭. জুরিখ: বিশ্বের অন্যতম সুন্দর শহর। পরিকাঠামোগত এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষার দিক থেকে ১ নম্বরে রয়েছে। সব বিষয় মিলিয়ে সপ্তম স্থানে রয়েছে জুরিখ। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৮৪ বছর।

 

৮. টরোন্টো: বেশ কয়েক বছর ধরে কানাডার অন্যতম বড় শহর টরোন্টো সব থেকে বাসযোগ্য শহরের তালিকায় উপরের দিকেই রয়েছে। পাঁচটি প্যারমিটারে অষ্টম স্থানে রয়েছে এই শহর। নাগরিকদের জীবতকাল ৮১ বছর।

৯. মেলবোর্ন: বেশ কয়েক বছর ধরে বিশ্বের সব থেকে বাসযোগ্য শহরের তকমা পাচ্ছে মেলবোর্ন। পাঁচটি প্যারামিটার বিচার করে মেলূোর্ন রয়েছে ৯ নম্বরে। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৮৬ বছর।


১০. নিউ ইয়র্ক: ১০ নম্বরে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক। ডিজিটাল সুরক্ষায় তিনে এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষায় দুয়ে থাকলেও, ব্যক্তিগত সুরক্ষায় ২৮ নম্বরে থাকায় ১০ নম্বরে স্থান পেয়েছে এই শহর। নাগরিকদের প্রত্যাশিত জীবতকাল ৮১ বছর।

 

লন্ডন (১২তম স্থান), প্যারিস (১৮তম), মাদ্রিদ (২১তম), রোম (২৭তম), সাংহাই (৩০তম), বেজিং (৩৭তম), ব্যাঙ্ককের (৩৯তম) শহরগুলি প্রথম ৫০-এ থাকলেও প্রথম ১০-এ জায়গা পায়নি। শেষ পাঁচটি স্থানে রয়েছে যথাক্রমে রিয়াদ, জোহানেসবার্গ, তেহরান, হো চি মিন সিটি এবং জাকার্তা।